Home / খেলা / লক্ষ্মীপুরে চিকিৎসকের কাঁধে শ্রমিকের লাশ

লক্ষ্মীপুরে চিকিৎসকের কাঁধে শ্রমিকের লাশ

নিজস্ব প্রতিবেদক : লক্ষ্মীপুরে ইটভাটার শ্রমিকের লাশ কাঁধে নিয়ে দাফন করলেন চিকিৎসকরা। জ্বর ও অসুস্থ্যজনিত কারণে চাঁন মিয়া (৪০) নামে এক ইটভাটার শ্রমিক মারা যায়। করোনাভাইরাসের ভয়াবহতায় আতঙ্কের মৃত ব্যক্তির স্বজনরা ভয়ে ছিলনা। পরে তার লাশ দাফনে এগিয়ে আসে স্থানিয় চিকিৎসকরা। এসময় কয়েকজন স্বেচ্ছাসেবী দল চিকিৎসকদের সহযোগিতা করেন। ঘটনাটি ঘটেছে লক্ষ্মীপুরের কমলনগর উপজেলার ফাজিল বেপারীরহাট এলাকায়। মঙ্গলবার (১৪ এপ্রিল) দিবাগত রাতে ধর্মীয় সব রীতিনীতি মেনে গোসল ও জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে ওই শ্রমিকের মরদেহ দাফন করা হয়েছে। জানা যায়, চাঁন মিয়া ফেনীর এক ইটভাটার শ্রমিক ছিলেন। জ্বরে আক্রান্ত হয়ে সোমবার তিনি ফাজিল বেপারীর হাট এলাকায় তার বাড়ি ফেরেন। মঙ্গলবার সন্ধ্যায়…

Review Overview

User Rating: Be the first one !

নিজস্ব প্রতিবেদক :

লক্ষ্মীপুরে ইটভাটার শ্রমিকের লাশ কাঁধে নিয়ে দাফন করলেন চিকিৎসকরা। জ্বর ও অসুস্থ্যজনিত কারণে চাঁন মিয়া (৪০) নামে এক ইটভাটার শ্রমিক মারা যায়। করোনাভাইরাসের ভয়াবহতায় আতঙ্কের মৃত ব্যক্তির স্বজনরা ভয়ে ছিলনা। পরে তার লাশ দাফনে এগিয়ে আসে স্থানিয় চিকিৎসকরা। এসময় কয়েকজন স্বেচ্ছাসেবী দল চিকিৎসকদের সহযোগিতা করেন।

ঘটনাটি ঘটেছে লক্ষ্মীপুরের কমলনগর উপজেলার ফাজিল বেপারীরহাট এলাকায়। মঙ্গলবার (১৪ এপ্রিল) দিবাগত রাতে ধর্মীয় সব রীতিনীতি মেনে গোসল ও জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে ওই শ্রমিকের মরদেহ দাফন করা হয়েছে।

জানা যায়, চাঁন মিয়া ফেনীর এক ইটভাটার শ্রমিক ছিলেন। জ্বরে আক্রান্ত হয়ে সোমবার তিনি ফাজিল বেপারীর হাট এলাকায় তার বাড়ি ফেরেন। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বাড়িতে হঠাৎ তিনি মারা যান। তবে এর আগে করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়ায় উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ তার নমুনা সংগ্রহ করে। এদিকে করোনা সন্দেহে গভীর রাত পর্যন্ত তার লাশ দাফন করা হয়নি। দাফনে এগিয়ে আসেনি তার আত্মীয়-স্বজন কিংবা এলাকাবাসী। খবর পেয়ে স্থানীয় পাটোয়ারীর হাট এলাকার স্বেচ্ছাসেবী ৬জন যুবক তার লাশ দাফনের জন্য এগিয়ে আসেন। পরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল কর্মকর্তা ডা. রেজাউল করিম রাজিব ও মেডিকেল টিমের আরো ৪সদস্য গোসল ও জানাজা শেষে তার লাশ দাফন করেন।

জানতে চাইলে ডা. রেজাউল করিম রাজীব বুধবার রাত ৮টার দিকে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে শীর্ষ সংবাদকে জানান, গভীর রাত পর্যন্ত তার লাশ দাফন হয়নি। পরে বিষয়টি শুনে স্বেচ্ছাসেবীরা (ইসলামী আন্দোলনের সদস্য) এগিয়ে আসলে ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী লাশটি দাফন করা হয়।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আবু তাহের শীর্ষ সংবাদকে বলেন, অসুস্থ্যজনিত কারণে চাঁন মিয়া নামে এক ইটভাটার শ্রমিক মারা যায়। করোনাভাইরাসের আতঙ্কের মৃত ব্যক্তির কাছে স্বজনরা না আসায় আমাকে খবর দেয় স্থানীয়রা। পরে আমি মেডিকেল টিম পাঠিয়ে তার লাশ দাফনে সহযোগিতা করি। Please follow and like us:

About Johir

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

এসব লোকদের প্রতিভা আছে। কিন্তু সুযোগ নেই (ভিডিও)